বিজ্ঞাপন

সংসদে রং বোমা, ইউএপিএ-তে ‘ষড়’যন্ত্রীদের বিরুদ্ধে মামলা

গোটা ঘটনায় ছ’জনের যুক্ত থাকার প্রমাণ মিললেও তাদের মধ্যে এখনও ষষ্ঠ জনকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ইউএপিএ বা রাষ্ট্রদ্রোহ আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে।

সংসদের ভেতরে রং বোমা নিয়ে হামলা চালানোর ঘটনায় এ বার পঞ্চম জনকেও গ্রেপ্তার করল দিল্লি পুলিশ। বুধবার রাতে হরিয়ানার গুরুগ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করা হয় পঞ্চম অভিযুক্ত বিশাল শর্মাকে। বিশালের বিরুদ্ধে অভিযোগ, সংসদে ‘স্মোক ক্র্যাকার’ (Smoke Cracker) বা রং বোমা নিয়ে ঢুকে পড়া দু’জন এবং বাইরে স্লোগান দেওয়া আরও দু’জনকে আশ্রয় দিয়েছিলেন তিনি। গোটা ঘটনায় ছ’জনের যুক্ত থাকার প্রমাণ মিললেও তাদের মধ্যে এখনও ষষ্ঠ জনকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ইউএপিএ বা রাষ্ট্রদ্রোহ আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বুধবার দুপুর ১টা নাগাদ বিজেপির মাইসোর কেন্দ্রের সাংসদ প্রতাপ সিংহের দেওয়া প্রবেশপত্র পকেটে ঢুকিয়ে, জুতোয় রং বোমা লুকিয়ে সংসদ ভবনে ঢুকে পড়ে দুই যুবক। অধিবেশন চলাকালীন দুপুর ১টার কিছু পরে লোকসভার দর্শক আসন থেকে নীচে ঝাঁপ মেরে ছুড়তে থাকে সেই রং বোমা। হলুদ ধোঁয়ায় ঢেকে যায় লোকসভার মূল অধিবেশন কক্ষের একাংশ। হঠাৎ এমন ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে পরে সকলে।

এই কান্ড চলাকালীন সংসদ ভবনের বাইরে ‘তানাশাহি নেহি চলেগা’ স্লোগান তোলেন দুই বিক্ষোভকারী। এক মহিলাও ছিলেন। পুলিশ আটকালেও লোকসভা কক্ষে ঝাঁপ মারা দু’জনকে ঠেকাতে মার্শাল বাহিনীকে সক্রিয় হতে দেখা যায়নি। লোকসভারই দুই সাংসদ, উত্তরপ্রদেশের মালুন নাগর (বহুজন সমাজ পার্টি) এবং রাজস্থানের হনুমান বেনীওয়াল (রাষ্ট্রীয় লোকতান্ত্রিক পার্টি) পাকড়াও করেন তাঁদের।

বিজ্ঞাপন

সংসদের ভিতরে হামলা চালানো দু’জনের নাম সাগর শর্মা এবং মনোরঞ্জন ডি। সংসদ ভবনের বাইরের নিরাপত্তা বলয়ের মধ্যে ঢুকে ‘তানাশাহি নেহি চলেগা’ স্লোগান তোলা দু’জনের নাম আনমোল শিন্ডে এবং নীলম সিংহ। বুধবার রাতেই দিল্লি পুলিশের কাছ থেকে তথ্য মেলে, আরও দু’জন রয়েছে। তবে এখনও আরেকজনের খোঁজ চলছে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন



Leave a Reply

বিজ্ঞাপন
Back to top button